আকাশ বার্তা
Next Prev

ওমিক্রণের ছায়া এবার ভারতেও! কি কি উপসর্গ দেখা যাচ্ছে ওমিক্রণে? জানুন

ওমিক্রণে কি কি উপসর্গ দেখা যাচ্ছে? জেনে নিন

আকাশ বার্তা অনলাইন ডেস্ক - ধীরে ধীরে করোনার থাবা ক্রমেই কমতে শুরু করেছিল দেশে। তবে সেই আশার খবরটি খুব বেশিদিন স্থায়ী হলো না। আশঙ্কা সত্যি করে এবার ভারতেও থাবা বসালো Omicron প্রজাতির ভাইরাস। এখনো পর্যন্ত কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক এর দেওয়া সংবাদ অনুযায়ী দেশে মোট দু জন ব্যক্তি আক্রান্ত হয়েছে এই প্রজাতির ভাইরাসে। যা নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে দেশ জুড়ে। 

এক নজরে আজকের সমস্ত ব্রেকিং নিউজ

Omicron এর উৎপত্তি - Omicron প্রজাতির ভাইরাসটি সর্বপ্রথম ধরা পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা তে। যদিও সেরকম বড়ো কোন উপসর্গ Omicron প্রজাতির ভাইরাসে দেখা না গেলেও ক্রমেই সংক্রমন ক্ষমতা বৃদ্ধি করছে এই ভাইরাস। বর্তমানে দক্ষিণ আফ্রিকায় এই ভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তির দৈনিক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮০০০ এর ও বেশী। তার থেকেও আশঙ্কার কথা হচ্ছে ক্রমেই বিভিন্ন দেশে থাবা বসাতে শুরু করে দিয়েছে Omicron। বর্তমানে এই ভাইরাস আক্রান্ত দেশের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯।

ভারতে প্রবেশ Omicronএর - বিগত কিছু দিন ধরেই নানা মহল থেকে জানানো হয়েছিল করোনা বিধি না মানলে ভারতেও খুব শীঘ্রই প্রবেশ করতে পারে Omicron। সেই আশঙ্কাই সত্যি করে এবার দেশে প্রবেশ করলো Omicron। জানা গেছে দক্ষিণ আফ্রিকা বা অন্যান্য কোন দেশ থেকে সম্প্রতি তারা প্রবেশ করেছেন ভারতে। বছর ৪৬ ও ৬৬ র দুই ব্যক্তির পরিচয় যদিও প্রকাশ করা হয়নি। তবে ইতিমধ্যেই তাদের পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে আইসোলেশনে। তাদের সাথেই দেশে ফেরা ব্যক্তিদের লালারসের পরীক্ষাও চালু করে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন- বড় খবর : ওমিক্রন রুখতে নয়া ভ্যাকসিন তৈরির সিদ্ধান্ত, বড় ঘোষণা নোভাভ্যাক্সের

কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে এই নতুন স্ট্রেন - চিকিৎসকদের মতে প্রতিটি ভাইরাস ই তার পূর্বের থেকে একটু বেশী ভয়ঙ্কর হয়। এছাড়াও ভাইরাসের চরিত্র হলো দিন যতো গড়াবে তার সংক্রমন ক্ষমতা ততোই বৃদ্ধি পাবে। সেই সাথে কমবে মৃত্যু হার। এখন প্রধান প্রশ্ন এই Omicron ভ্যারিয়েন্ট এর ফলে কতো মানুষ আক্রান্ত হয় বা মারা যায় সেই হার। এছাড়াও চিকিৎসকদের মতে বলা হচ্ছে যদি এই ভাইরাসের প্রভাবে ইমিউন এস্কেপ ঘটে সেক্ষেত্রে বর্তমানে চলতে থাকা ভ্যাকসিন গুলির কর্মক্ষমতা একেবারেই কম হয়ে যাওয়া। 

এছাড়াও যদি দক্ষিণ আফ্রিকার সংক্রমন হার বজায় থাকে সেক্ষেত্রে এই মিউটেশন টির যে সংক্রমন হার মারাত্মক হবে সেটা বলাই যায়। তবে বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে ভারতের ভ্যাক্সিনেশন এর মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় সর্বমোট যেখানে ২৮ শতাংশ মানুষ ভ্যাকসিন পেয়েছেন সেখানে ভারতে অন্তত পক্ষে একটি ডোজ করে ভ্যাকসিন পেয়েছেন ৫৮ শতাংশ মানুষ। এখানেই বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ভারতের সংক্রমন বৃদ্ধি পেলেও হয়তোবা আগের মতো হবেনা মৃত্যুহার।

আরও পড়ুন- ওমিক্রণ থেকে বাঁচতে আজ থেকে চালু নয়া বিধি, না মানলে হবেন আটক

লক্ষণ - চিকিৎসকদের মতে স্বাদ চলে যাওয়া বা গন্ধ চলে যাওয়ার মতো সমস্যা গুলি খুবই দুর্বল লক্ষণ। বরং জ্বর, সর্দি, কাশি হলে সেক্ষেত্রে টেস্ট করেই একমাত্র বোঝা সম্ভব আদৌ সেটা Omicron ভ্যারিয়েন্ট কিনা। সেই কারনেই বারংবার চিকিৎসক দের পক্ষ থেকে সতর্ক করা হচ্ছে করোনা বিধি নিষেধ মেনে চলার। সর্বদা মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করার ও পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। অযথা প্যানিক না করে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চললে সকলের ক্ষেত্রেই মঙ্গল বলেই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

আপনি কী এই নিউজগুলি পড়েছেন? পড়ুন আজকের বাছাই করা ব্রেকিং নিউজের আপডেট

রাজনীতি

তথ্য ও প্রযুক্তি

বিনোদন