আকাশ বার্তা
Next Prev

স্বয়ং মহাদেব এই গুপ্তমন্ত্র রচনা করেছিলেন, এই গুপ্তমন্ত্র রোজ দিনে ১ বার উচ্চারণ মাত্রই পাবেন ফল

স্বয়ং মহাদেব রচিত এই মন্ত্র দিনে একবার পাঠ করুন, ফল পাবেন হাতেনাতে

আকাশবার্তা অনলাইন ডেস্ক -  হিন্দু ধর্মে রয়েছেন ১৩৩ কোটি দেব দেবী, তার মধ্যে অন্যতম হলেন ত্রিলোকেশ্বর মহাদেব। শাস্ত্রতে বলা আছে মহাদেবের স্তুতি করলে জীবন থেকে বিভিন্ন অশুভ প্রভাব দূর হয়। মহাদেবের স্তুতির জন্য বিভিন্ন মন্ত্র উল্লেখিত আছে হিন্দু শাস্ত্রে।কিন্তু আপনি কি জানেন স্বয়ং মহাদেব একটি গুপ্ত মন্ত্র রচনা করেছিলেন, যা একবার উচ্চারণ করলে ৩০ সেকেন্ডের মধ্যে ফল পাওয়া সম্ভব! 

মন্ত্রটির শক্তি - বলা হয় ভগবান মহাদেবের কৃপা যদি একবার কারোর উপর পড়ে তার উপর থেকে বিপদ হওয়া তো দূর, মৃত্যুও তার কাছে আসতে ভয় পায়।শাস্ত্র থেকে জানা গিয়েছে,দেবতাদের দেব মহাদেব, মাতা পার্বতীর অনুরোধে এই মন্ত্রটির রচনা করেছিলেন। শাস্ত্রে মন্ত্রটির বিশেষত্ব বলা  হয়েছে। মন্ত্রটি এতটাই শক্তিশালী যে এই মন্ত্র জপ করার সময় সেই সময়কার মনের ইচ্ছা সত্যি হয়ে যায়। এই মন্ত্রটির প্র‍য়োগ এই কারনেই খুব সাবধানে করা উচিত।ভুল করেও কোনো ব্যাক্তির ক্ষতিসাধনের ইচ্ছায় এই মন্ত্রের প্র‍য়োগ করবেন না, নয়তো এর খারাপ প্রভাব ভুগতে হবে আপনাকেই। এই মন্ত্রের জপ করতে পারলে আপনাদের সকল কার্যসিদ্ধি পাবে এমনটাই বলা হয়েছে শাস্ত্রে।

আরো পড়ুন - সকালে ঘুম থেকে উঠে মাত্র তিনবার জপ করুন এই মন্ত্র, এক সপ্তাহের মধ্যে আর্থিক কষ্ট থেকে রেহাই পাবেন

এক নজরে আজকের সমস্ত ব্রেকিং নিউজ

মন্ত্র রচনার কাহিনী -  কথিত আছে একবার অর্জুন পশুপতি অস্ত্র পাওয়ার জন্য মহাদেবের তপস্যায় ব্রত হয়েছিলেন।এইসময় অর্জুনের পরীক্ষা নেওয়ার জন্য দেবাদিদেব মর্তে এক শিকারির বেশ নিয়ে হাজির হন।এই সময় অর্জুন জঙ্গলে একটি শুয়োরকে শিকারের জন্য তীর নিক্ষেপ করেন,এবং শিকারি রূপে থাকা মহাদেবও ওই শুয়োরের উপর তীর নিক্ষেপ করেন। এরপর স্বাভাবিকভাবেই কে শুয়োরটিকে শিকার করেছে তা নিয়ে দুজনের মধ্যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয় এবং যুদ্ধের সৃষ্টি হয়। তাদের যুদ্ধ দেখার জন্য মাতা পার্বতীও শিকারির বেশেই মর্তে উপস্থিত হন। মাতা পার্বতী ওই স্থানের আদিবাসীদের সাথে মিশে তাদের যুদ্ধ দেখতে থাকেন।যুদ্ধ চলতে চলতে একসময় ভগবান শ্রীকৃষ্ণ এসে অর্জুনকে মহাদেবের আসল রূপের কথা জানান।এই কথা শুনে অর্জুন যুদ্ধ থামিয়ে দেয় ও ভগবান শিবের পায়ে নিজেকে অর্পন করে।দেবাদিদেব অর্জুনের এই ভক্তিতে সন্তুষ্ট হয়ে তাকে পশুপতি অস্ত্র প্রদান করে।অপরদিকে মাতা পার্বতী ওই এলাকার আদিবাসীদের কাছে খুবই যত্ন পেয়ে তাদের নিজের আসল রূপ দেখান। মাতা তাদের কাছে জানতে চান তারা কি চায়।সেই সময় ওই আদিবাসীরা জানায় তারা সরলভাবে কোনো মন্ত্র চায় যেটা বললে দেবাদিদেব ও মাতা পার্বতি সন্তুষ্ট হবেন।তাদের অনুরোধে দেবাদিদেব এই  'সাবার মন্ত্র' রচনা করেন।

আরো পড়ুন - স্নান করার সময় স্নানের আগে জলে মিশিয়ে নিন এই জিনিস, দূর হয় শারীরিক অসুস্থতা সহ আর্থিক সমস্যা, বলছে জোতিষ শাস্ত্র

কিভাবে মন্ত্র টি জপ করবেন - এই মন্ত্র জপ করার সময় আপনি আপনার ইষ্টদেবতার ধ্যান করবেন এবং নিজের ধ্বনির উপর মনোযোগ সহকারে মন্ত্রটি জপ করবেন।মঙ্গলবার ভোর ৪ টে থেকে ৬ টার মধ্যে এই মন্ত্র জপ করার সঠিক সময়।স্নান করে শুদ্ধবস্ত্র পরিধান করে এই মন্ত্র জপ করবেন।

সাবার মন্ত্র - "আদো অন্ত ধরতি আদো অন্ত পরমাত্মা দোনো বিচ বৈঠে শিবজি মহতমা খোলো ঘড়া দে দেখ শিবাজি মহারাজ তেরে শব্দ কা তামাশা"।

আপনি কী এই নিউজগুলি পড়েছেন? পড়ুন আজকের বাছাই করা ব্রেকিং নিউজের আপডেট

রাজনীতি

তথ্য ও প্রযুক্তি

বিনোদন