আকাশ বার্তা
Next Prev

কম বাজেটে সহজে কেদারনাথ যাত্রা কিভাবে করবেন? কীভাবে যাবেন? কি কি দেখবেন? কোথায় থাকবেন? জানুন সম্পূর্ণ তথ্য

একদম কম বাজেটে কেদারনাথ যাত্রা! কীভাবে যাবেন? কি কি দেখবেন? কোথায় থাকবেন? জানুন সম্পূর্ণ তথ্য

আকাশ বার্তা অনলাইন ডেস্ক- 'ওঁ নমঃ শিবায়' শরীরে কাঁটা তোলার জন্য এই তিনটি শব্দই যথেষ্ট। বাঙালি থেকে অবাঙালি সকলেই প্রায় অপেক্ষা করে আছে করোনার প্রতিবন্ধকতা কে কাটিয়ে আবারও পৌঁছে যাবে ভগবান শিবের একঝলক দর্শনে।খুবই অদ্ভুত টান এই তৃতীয় ধাম, কেদারনাথের। প্রচলিত আছে,সে ডাকলে নিজেকে সেখানে যাওয়া থেকে আটকে রাখা একপ্রকার অসম্ভব।ঠিকই ধরেছেন এই প্রতিবেদনে আমরা আলোচনা করতে চলেছি বাবার তৃতীয় ধাম কেদারনাথ প্রসঙ্গেই।

এক নজরে আজকের সমস্ত ব্রেকিং নিউজ

কিভাবে যাবেন কেদারনাথ- প্রথমেই বলে দেওয়া ভালো কেদারনাথ অত্যন্ত দূর্গম জায়গা,কেদারনাথ এ যাওয়ার আগে পৌঁছতে হবে শোনপ্রয়াগ।যে রাস্তা খুবই দূর্গম।এই কারনে যতদূরই যান এই পথে যেখানে সন্ধে হয়ে যাবে সেখানেই দাঁড়িয়ে পরদিন সকাল অবধি অপেক্ষা করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।উত্তর কাশি থেকে শোনপ্রয়াগের দূরত্ব সড়কপথে ২২৭ কিমি।

সকালবেলা উত্তর কাশি থেকে গাড়ি করে রওনা দিলে গুপ্তকাশি পৌঁছাতে পৌঁছাতেই সন্ধে হয়ে যাবে।একটানা পাহাড়ি রাস্তায় গাড়িতে চলতে চলতে ক্লান্তি আসতে বাধ্য শরীরে।গুপ্ত কাশি যাওয়ার পথের বাঁদিকে দেখতে পাবেন বয়ে চলেছে মন্দাকিনী নদী।

আরও পড়ুন- পুরী ঘুরতে গিয়ে ভুলেও এই 10 কাজ করবেন না, পড়বেন বড় বিপদে, সাবধান!

প্রসঙ্গত বলে রাখা ভালো যারা কেদারনাথ দর্শন করতে যাবেন তারা হরিদ্দার বা উত্তর কাশি থেকে যাওয়ার পথে গুপ্ত কাশি তে রাতের থাকার জন্য হোটেল পেয়ে যাবেন।যদি তা না চান আরেকটু এগিয়ে ফাটা তেও রাত্রী বাস করতে পারেন।

ফাটা থেকে শোনপ্রয়াগের দূরত্ব ১৩ কিমি।পরের দিন সকাল সকালই বেরিয়ে পড়ুন ফাটা থেকে শোনপ্রয়াগের উদ্দেশ্যে।শোনপ্র‍য়াগে পৌঁছানোর পর সেখানেই পেয়ে যাবেন কেদারনাথ বা চারধাম যাত্রার রেজিস্ট্রেশন কাউন্টার।যারা অনলাইন রেজিস্টার করতে পারবেন না।তারা এই কাউন্টার থেকেও রেজিস্টার করে নিতে পারবেন।

আরও পড়ুন- পশ্চিমবঙ্গের ১০টি জনপ্রিয় দুর্দান্ত ভ্রমণ স্থান, যেখানে একবার গেলে বারবার যেতে ইচ্ছে করবে, দেখুন তালিকা

আপনারা যেই প্রাইভেট গাড়ি বা নিজস্ব গাড়িতে শোনপ্রয়াগ যাবেন সেখানে ওই গাড়ি রেখে সেখানকার স্থানীয় গাড়ি করে এগিয়ে যেতে হবে গৌরিকুন্ডের দিকে।গাড়ির চড়ে গৌরিকুন্ডই শেষ জায়গা।এরপর গাড়ি থেকে নেমে পায়ে হেঁটে রওনা দিতে হবে কেদারনাথের উদ্দেশ্যে।অবশ্য ঘোড়ায় চড়েও যাওয়ার ব্যবস্থা আছে সেখানে।এরপর দূর্গম পথ পেড়িয়ে অবশেষে দেখা মিলবে কেদারনাথে ভগবান শিবের।

আপনি কী এই নিউজগুলি পড়েছেন? পড়ুন আজকের বাছাই করা ব্রেকিং নিউজের আপডেট

রাজনীতি

তথ্য ও প্রযুক্তি

বিনোদন