আকাশ বার্তা
Next Prev

কিভাবে মৃত্যু হয়েছিল শ্রী রাধার? জানুন রাধার অবাক করা মৃত্যু রহস্য!

জানেন কিভাবে মৃত্যু হয়েছিল শ্রীরাধার? জানুন শ্রী রাধার মৃত্যু হওয়ার অবাক করা রহস্য

নিজস্ব প্রতিবেদন:- আমাদের বাঙ্গালীদের প্রেমলীলা যতই গভীর হোক না কেন এই প্রেমলীলার সম্পর্কে আমরা প্রাথমিকভাবে যাদের কথা সবার প্রথম মনে করি তারা হল ভক্তের ভগবান শ্রীকৃষ্ণ এবং রাধা ।  তাদের অটুট এই প্রেম অসম্পূর্ণ থাকলেও এমনটা মনে করা হয় যে তাদের মিলনে জীবাত্মা এবং পরমাত্মার একাত্মকরণ ঘটে । তাই রাধার থেকে কৃষ্ণ নাম কখনোই আলাদা করা যায় না ।  কিন্তু আপনি কি জানেন যে শ্রীকৃষ্ণ তাদের ভালোবাসার একমাত্র প্রতীক হিসাবে  সেই প্রিয় বাঁশিটিকে শেষ সময়ে ভেঙ্গে ফেলেছিলেন কেন?  তার কারণ আজকের এই প্রতিবেদনে বিস্তারিত ভাবে উল্লেখ করা রইল ।

এক নজরে আজকের সমস্ত ব্রেকিং নিউজ

আরও পড়ুন-হিন্দু ধর্মে মৃত্যুর পর কেন দেহ দাহ করা হয়, জানুন গরুড় পুরানে দেওয়া বিশ্লেষণ!

শ্রীকৃষ্ণের সাথে রাধার সাক্ষাৎকার:-এমনটা মনে করা হয় যে দ্বাপর যুগে বিষ্ণু শ্রী কৃষ্ণ রূপে জন্ম এই পৃথিবীতে ।   অপরদিকে মা লক্ষ্মী রাধা হিসেবে জন্ম নেন ।  তাদের ভালোবাসা অমরত্ব লাভ করতে পারলেও অসম্পূর্ণ ছিল  ।। কৃষ্ণ কে  না পেয়ে কি পরিণতি হয়েছিল সে কথা হয়ত অনেকের অজানা ।শ্রীকৃষ্ণ মাত্র আট বছর বয়সে তার প্রেয়সী রাধার সাথে প্রথমবার সাক্ষাৎকারের সুযোগ পান এবং তাদের ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে ছিল শ্রীকৃষ্ণের বাঁশি  । শ্রীকৃষ্ণের বাঁশির সুর কে কোন রকম ভাবে অস্বীকার করতে পারত না রাধা । শ্রীকৃষ্ণ সেই  বাঁশি বিন্দুমাত্র সময়ের জন্য হাতছাড়া করতেন না ।


আরও পড়ুন-শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন যার মধ্যে এই তিনটি গুণ আছে, সে মহা বিপদে পড়লেও ভগবান তাকে সব সময় রক্ষা করবেন!

রাধার মৃত্যু ও শ্রীকৃষ্ণের বাঁশি ভাঙার কারণ -সেসময়ে কংসরাজা অর্থাৎ শ্রী কৃষ্ণ এবং বলরামের মামা তাঁদের মথুরায় আমন্ত্রণ জানানোয় বৃন্দাবনে যেন এক শোকের ছায়া নেমে আসে।  অবশেষে বৃন্দাবন বাসীদের সমর্থনে শ্রীকৃষ্ণ মথুরা উদ্দেশ্যে রওনা দেন ।তবে তাঁর পূর্বে শ্রী কৃষ্ণ তাঁর প্রেয়সী রাধার সাথে শেষবারের মত দেখা করেন এবং শেষবারের মত তাঁদের মনের সমস্ত দুঃখকষ্ট ভাগ করে নেন । পুনরায় বৃন্দাবনে ফিরে আসার প্রতিজ্ঞা করলেও শ্রীকৃষ্ণ কিন্তু আর বৃন্দাবনে ফিরে আসেন নি  ।বরং সেখানেই দেখা হয়ে যায় রুক্মিণী সাথে ।

রুক্মিণী অজান্তেই শ্রীকৃষ্ণকে ভালোবেসে ফেলেন  ।অপরদিকে রাধার মনে কিন্তু চিরস্থায়ীভাবে থেকে যায় শ্রীকৃষ্ণের প্রতিচ্ছবি ।এভাবে চলতে চলতে একটা সময় রুক্মিণীর সাথে শ্রীকৃষ্ণের বিবাহ হয়  ।অপরদিকে রাধা সংসার এ মন দিলেও তার মনে কিন্তু থেকে গেছে শ্রীকৃষ্ণের প্রতি অটুট ভালোবাসা ।প্রতিনিয়ত শ্রীকৃষ্ণের প্রতি ভালোবাসার টান বাড়তে থাকার কারণে রাধা শেষবারের মতন দ্বারকায় যান শ্রীকৃষ্ণের সাথে দেখা করতে  । কিন্তু  সেখানের লোকেরা রাধার পরিচয় জানতেন না  ।

অপরদিকে রাধা শ্রীকৃষ্ণের প্রাসাদে একজন সেবিকা হিসেবে  নিযুক্ত হন ।এইসময় শ্রী কৃষ্ণ রাধার মনের কথা জানতে পেরে, তাঁর সাথে সাক্ষাতের উদ্দ্যেশ্যে তাঁর সামনে উপস্থিত হন। তিনি রাধাকে তাঁর কাছ থেকে কিছু দাবী জানানোর অনুরোধ করেন। কিন্তু রাধা তা অস্বীকার করায় তিনি ব্যথিত হন। তবে পরবর্তী ক্ষেত্রে  রাধা অনুরোধ করেছিলেন শ্রীকৃষ্ণকে বাঁশি বাজানোর জন্য । সেই বাঁশি বাজিয়ে রীতিমতো আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল শ্রীকৃষ্ণ এবং এভাবেই বাঁশির সুরের সাথে সাথে রাধা আধ্যাত্মিক রূপ থেকে কৃষ্ণের সাথে বিলিন হয়ে যায় ও রাধা দেহত্যাগ করেন । নিজের ভালোবাসার মানুষের বিলীন হয়ে যাওয়ার ঘটনা চোখের সামনে দেখে মনে নিতে পারেনি শ্রীকৃষ্ণ ।  তাই তাদের ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে যে  বাঁশিটি ছিল সেই বাঁশিটি ভেঙ্গে ফেলেছিলো শ্রীকৃষ্ণ।

আপনি কী এই নিউজগুলি পড়েছেন? পড়ুন আজকের বাছাই করা ব্রেকিং নিউজের আপডেট

রাজনীতি

তথ্য ও প্রযুক্তি

বিনোদন